২০২৩ সালে বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে ই-কমার্স ব্যবসার গুরুত্ব

April 12, 2023

২০২৩ সালে বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে ই-কমার্স ব্যবসার গুরুত্ব

ই-কমার্স ব্যবসা হচ্ছে অনলাইনে পণ্য ও পরিষেবা ক্রয়-বিক্রয় করার একটি মাধ্যম। সাম্প্রতিক বছর গুলোতে ই-কমার্স ব্যবসা ক্রমবর্ধমানে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। বিশেষ করে বাংলাদেশে ই-কমার্স ব্যবসা অনেক সাফল্য বয়ে এনেছে। বাংলাদেশে অনেক উদ্যক্তারা তাদের বেকারত্ব দুর করেছে ই-কমার্স ব্যবসা শুরু করার ফলে। বাংলাদেশে ই-কমার্স ব্যবসা সফল হওয়ার বেশ কিছু কারণ রয়েছে যেমন বাংলাদেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়া, লো কস্ট ইফেক্ট এমন আরও অনেক কারণ.....

ই-কমার্স ব্যাবসা কী? 

ই-কমার্স ব্যবসা হল এমন একটি বাণিজ্য ক্ষেত্র যেখানে বিভিন্ন উদ্যোক্তা বা প্রতিষ্ঠান তাদের নিজ পণ্য ইন্টারনেটের মাধ্যমে ক্রয় ও বিক্রয় করে থাকেন। অন্য কথায়, এটি একটি ব্যবসায়িক মাধ্যম যা কোম্পানি এবং ব্যক্তিদের ফিজিকাল স্টোরফ্রন্ট ছাড়াই অনলাইনে বাণিজ্যিক লেনদেন পরিচালনা করতে দেয়।

 

ই-কমার্স ব্যবসা সাধারণত ওয়েবসাইট, মোবাইল অ্যাপস এবং অন্যান্য ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে  পণ্য ও পরিষেবা বিক্রয়  করা হয় ।  কাস্টমারেরা কম্পিউটার বা মোবাইল ডিভাইস ব্যবহার করে তাদের পছন্দের পণ্যগুলি ব্রাউজ করে পর্যালোচনা করে, তাদের ঘরে বসে কেনাকাটা করতে পারেন।

 

সাম্প্রতিক বছরগুলিতে ই-কমার্স ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে, কারণ বিশ্বজুড়ে অনেক বেশি সংখ্যক মানুষ ইন্টারনেটে অ্যাক্সেস পেয়েছে এবং সাধারণ দোকানে গিয়ে পন্য কেনার তুলনায়  অনলাইন শপিংয়ে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে৷  আজ, ই-কমার্স হল একটি মাল্টি-বিলিয়ন-ডলার শিল্প যা ছোট, ইন্ডিভিজুয়াল খুচরা বিক্রেতা থেকে শুরু করে অ্যামাজন এবং আলিবাবার মতো বিশ্বব্যাপী বাজার পর্যন্ত সমস্ত কিছুকে অন্তর্ভুক্ত করে।

 

বাংলাদেশে ই-কমার্স ব্যবসা সফল কেন? 

 

ই-কমার্স ব্যবসা সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বিভিন্ন কারণের কারণে বাংলাদেশে উল্লেখযোগ্য সাফল্য এনেছে।  বাংলাদেশে ই-কমার্স ব্যবসা সফল হওয়ার কয়েকটি কারণ এখানে রয়েছে:

গ্রোয়িং ইন্টারনেট পিনেট্রেশন : গত এক দশকে বাংলাদেশে ইন্টারনেটের  উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে, যেখানে অনেক বেশি সংখ্যক মানুষ মোবাইল ডিভাইস এবং সাশ্রয়ী মূল্যের ডেটা প্ল্যানের মাধ্যমে ইন্টারনেট অ্যাক্সেস করছে।  এটি ই-কমার্স ব্যবসার জন্য একটি বড় এবং ক্রমবর্ধমান গ্রাহক বেস তৈরি করেছে।

অনলাইন কেনাকাটার প্রতি আস্থা বৃদ্ধি: যত বেশি মানুষ অনলাইন শপিংয়ের সাথে পরিচিত হয়েছে এবং ই-কমার্স ব্যবসার সাথে ইতিবাচক অভিজ্ঞতা পেয়েছে, বাংলাদেশে অনলাইন শপিংয়ের প্রতি আস্থা বৃদ্ধি পেয়েছে।  এটি ই-কমার্স পরিষেবার চাহিদা বাড়াতে সাহায্য করেছে।

ফিজিক্যাল রিটেইল স্টোরে সীমিত অ্যাক্সেস: বাংলাদেশের অনেক জায়গায়, বিশেষ করে বড় শহরের বাইরে, ফিজিক্যাল রিটেল স্টোরগুলিতে অ্যাক্সেস সীমিত হতে পারে।  ই-কমার্স ব্যবসাগুলি স্থানীয়ভাবে উপলব্ধ নাও হতে পারে এমন বিস্তৃত পণ্য এবং পরিষেবা সরবরাহ করে এই শূন্যতা পূরণ করতে সক্ষম হয়েছে।

সুবিধা এবং খরচ-কার্যকারিতা: ই-কমার্স ব্যবসাগুলি কেনাকাটা করার জন্য একটি সুবিধাজনক এবং সাশ্রয়ী উপায় অফার করে, বিশেষত ব্যস্ত গ্রাহকদের জন্য যাদের ফিজিকাল স্টোরে যাওয়ার সময় নেই।  অনলাইন শপিং গ্রাহকদের সহজেই দাম বিষয়ে জানতে  এবং স্থানীয় দোকানে খুঁজে পেতে পারে এমন পণ্যের বিস্তৃত পরিসরে অ্যাক্সেস করতে দেয়।

সরকারী সহায়তা: বাংলাদেশ সরকার ই-কমার্স সেক্টরের বৃদ্ধিকে সমর্থন করার জন্য পদক্ষেপ নিয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে স্টার্টআপের জন্য তহবিল এবং লোন প্রদান, ই-কমার্স লেনদেনের উপর ট্যাক্স  হ্রাস করেছে । এটি দেশে ই-কমার্স কোম্পানিগুলির জন্য একটি ফেভারঅ্যাবল ব্যবসার পরিবেশ তৈরি করতে সহায়তা করেছে।

সামগ্রিকভাবে, এই কারণগুলি বাংলাদেশে ই-কমার্স ব্যবসার সাফল্যে অবদান রেখেছে এবং আগামী বছরগুলিতে এই সেক্টরে প্রবৃদ্ধি বাড়তে পারে।

 

২০২৩ সালে বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে ই-কমার্স ব্যবসার গুরুত্ব 

বিগত কয়েক বছর ধরে বাংলাদেশে ই-কমার্স দ্রুত হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং এটি ২০২৩ এবং তার পরেও দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

বাংলাদেশে ই-কমার্স ব্যবসা বৃদ্ধির অন্যতম প্রধান মাধ্যম হলো স্মার্টফোন এবং ইন্টারনেট অ্যাক্সস এর  অধিক হারে বৃদ্ধি এবং এর ব্যবহার। যত বেশি মানুষ এই প্রযুক্তিগুলিতে অ্যাক্সেস লাভ করছে, তারা অনলাইন শপিংয়ে আরও স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করছে এবং পণ্য ও পরিষেবা কেনার জন্য অধিক হারে ই-কমার্স প্ল্যাটফর্মের দিকে ঝুঁকছে। 

বাংলাদেশে ই-কমার্স ব্যবাসার বৃদ্ধিতে অবদান রাখার আরেকটি কারণ হল অনলাইন মার্কেটপ্লেস এবং রিটাইলারসদের ক্রমবর্ধমান সংখ্যা।  আমাজন এবং আলিবাবার মতো প্রধান আন্তর্জাতিক প্লেয়াররা বাংলাদেশের বাজারে প্রবেশ করেছে, এবং দারাজ, বাগডুম এবং আজকারডিলের মতো বেশ কয়েকটি স্থানীয় ই-কমার্স প্ল্যাটফর্মও রয়েছে।  

কোভিড-১৯ মহামারী বাংলাদেশে ই-কমার্স ব্যবসাকে আরও বাড়িয়ে তুলেছিলো কারণ লোকেরাই কোনো ফিজিকাল স্টোরের তুলনায় অনলাইনে কেনাকাটা বেশি সেফ মনে করতো। কোভিড-১৯ কালীন সময়ে মানুষেরা বাড়িতে থাকতে এবং কোনো দোকানে গিয়ে কেনাকাটা এড়াতে বাধ্য হয়েছে।  এটি মহামারী কমে যাওয়ার পরেও অব্যাহত থাকতে পারে, কারণ লোকেরা অনলাইন কেনাকাটার সাথে আরও স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেছে এবং এটি যে সুবিধা এবং ব্যয়-কার্যকারিতা অফার করে তা বুঝতে পেরেছে।

কাস্টমারদের অধিক পছন্দ ও সুবিধা প্রদানের পাশাপাশি, ই-কমার্স বাংলাদেশে ব্যবসার জন্য নতুন সুযোগ সৃষ্টি করছে।  ছোট এবং মাঝারি আকারের উদ্যোগগুলি (এসএমই) বিশেষ করে ফিজিক্যাল স্টোরফ্রন্ট বা বিতরণ নেটওয়ার্কগুলিতে বিনিয়োগ না করেই সারা দেশে এমনকি আন্তর্জাতিকভাবে গ্রাহকদের কাছে পৌঁছানোর ক্ষমতা থেকে উপকৃত হচ্ছে।  এটি বাংলাদেশে উদ্যোক্তা এবং কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে সহায়তা করছে, যা দেশের দীর্ঘমেয়াদী অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

 

বাংলাদেশে ই-কমার্স ব্যবসায় কারা সফল হতে পারে?

বাংলাদেশে, যে কেউ ই-কমার্স ব্যবসায় সফল হতে পারেন যদি তার সঠিক মাইন্ডসেট, ডেডিকেশন এবং স্ট্রেটেজি থাকে।  যাইহোক, কিছু গুণ এবং দক্ষতা রয়েছে যা এই ক্ষেত্রে সাফল্যের জন্য বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ:

উদ্যোক্তা স্পিরিট : ই-কমার্স ব্যবসার জন্য নতুন ধ্যানধারণা অ্যাপ্রোচ আনতে অনেক অনেক উদ্যোগ, রিস্ক নেয়া এবং সৃজনশীলতার প্রয়োজন। 

গ্রাহক ফোকাস: ই-কমার্সে সাফল্য নির্ভর করে গ্রাহকদের চাহিদা মেটানো, মানসম্পন্ন পণ্য ও পরিষেবা সরবরাহ করা এবং একটি বিশ্বস্ত গ্রাহক বেস তৈরির ওপর।

টেক-স্যাভিনেস: ই-কমার্স ব্যবসাগুলি মূলত অনলাইনে কাজ করে, তাই প্রযুক্তি এবং ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে ভালো ধারণা থাকা অপরিহার্য।

আর্থিক ব্যবস্থাপনা: কার্যকরভাবে অর্থ পরিচালনা করা যেকোনো ব্যবসার সাফল্যের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।  ই-কমার্স ব্যবসার খরচ, নগদ প্রবাহ এবং লাভের হিসাব রাখা দরকার।

লজিস্টিকস এবং সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্ট: লজিস্টিকস এবং সাপ্লাই চেইনের দক্ষ ব্যবস্থাপনা ই-কমার্স ব্যবসাগুলিকে সময়মত এবং সাশ্রয়ী পদ্ধতিতে গ্রাহকদের কাছে পণ্য সরবরাহ করতে সাহায্য করতে পারে।

মার্কেটিং এবং ব্র্যান্ডিং: কার্যকর মার্কেটিং এবং ব্র্যান্ডিং ই-কমার্স ব্যবসাগুলিকে গ্রাহকদের আকৃষ্ট করতে এবং একটি স্ট্রং ব্র্যান্ডের রেপিউটেশন তৈরি করতে সহায়তা করতে পারে।

অ্যাডাপটিবিলিটি এবং রেসিলেন্স : ই-কমার্স একটি দ্রুতগতির এবং দ্রুত পরিবর্তনশীল শিল্প, তাই নতুন ট্রেন্ড এবং চ্যালেঞ্জগুলির সাথে খাপ খাইয়ে নেওয়ার ক্ষমতা সাফল্যের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

সামগ্রিকভাবে শুধু মাত্র বাংলাদেশেই নয় পৃথিবীর যেকোনো দেশের মানুষ এই রকম মাইন্ডসেট এবং স্ট্রেটিজি নিয়ে যেকোনো ই-কমার্স ব্যবসায় সফল হতে পারে। 

 

পরিশেষে ই-কমার্স ব্যবসা হচ্ছে এমন একটি মাধ্যম যা মানুষের কেনাকাটা অনেক সহজ করে তুলেছে। ই-কমার্স ব্যবসা বাংলাদেশের অর্থনীতিতে একটি ক্রমবর্ধমান গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে এবং ২০২৩ এবং তার পরেও তা তাৎপর্যপূর্ণভাবে বৃদ্ধি পাবে বলে আশা করা হচ্ছে।  এটি গ্রাহকদের বৃহত্তর পছন্দ এবং সুবিধা প্রদান করছে, ব্যবসার মধ্যে উদ্ভাবন এবং প্রতিযোগিতার চালনা করছে এবং উদ্যোক্তা ও চাকরি সৃষ্টির জন্য নতুন সুযোগ তৈরি করছে। 

 

 

Tagged with:
Business Landing

Recent Posts

Post a comment

Full Name
Message